1. admin@amaderpotrika.com : admin :
  2. anisurladla71@gmail.com : Anisur :
  3. info.popularhostbd@gmail.com : PopularHostBD :
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
লালমনিরহাটের দুর্গাপুর সীমান্তে বিপুল পরিমান স্বর্ণসহ একজন আটক লালমনিরহাটের আদিতমারীতে তিস্তায় অবৈধ মেশিন ও ট্রাক জব্দ করলেন ইউএনওঃ লাখ টাকা জরিমানা লালমনিরহাটের পাটগ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধা এম ওয়াজেদ আলী হত্যা মামলার প্রধান আসামী বাবু গ্রেফতার।জেল হাজতে প্রেরন। লালমনিরহাটের পাটগ্রামে নিজ বাসার গেটের পাশে দূর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে নিহত হলেন অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এম ওয়াজেদ আলী লালমনিরহাটে ফেন্সিডিলসহ দুই পুলিশ সদস্য গ্রেফতার ট্রাফিক ইন্সপেক্টর ফিরোজ মাহমুদ সোহেলের অকাল মৃত্যুতে কালীগঞ্জে বিভিন্ন মহলের শোক প্রকাশ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে, বইছে শৈত্যপ্রবাহ সড়কে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবিতে কালীগঞ্জের কাকিনায় শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ লালমনিরহাটে স্বর্ণামতি নন্দিনী সাহিত্য ও পাঠচক্রের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী-দুই দেশের কবি সাহিত্যিকদের মিলনমেলা লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় বালু-মহাল বন্ধের দাবীতে স্থানীয় কৃষদের মানববন্ধন

লালমনিরহাটে বেড়েছে পানি; পানিবন্দী হাজারো মানুষ

লালমনিরহাট প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৭ জুন, ২০২২
  • ৩৮ বার পড়া হয়েছে

ভারী বর্ষণ ও উজানের ঢলে লালমনিরহাটের তিস্তা, ধরলা রত্নাইসহ বিভিন্ন নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।  শুক্রবার সকালে তিস্তা নদীর ডালিয়া ব্যারাজ পয়েন্টে বিপদসীমার ১৪ সে. মি উপরে ও ধরলা নদী বিপদসীমার ১৫ সে. মি উপরে রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়াও জেলায় গত ২৪ ঘন্টায় ৮৪ মি. মি. বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। ফলে জেলায় নদীর তীরবর্তী ও নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে হাজারো মানুষ পানি বন্দী হয়ে পড়েছে। যে কোন পরিস্থিতি মোকাবিলায় পানি উন্নয়ন বোর্ড ও জেলা প্রশাসন সজাগ রয়েছে বলে জানানো হয়েছে।তবে বিকেল ৩টায় তিস্তা নদীর পানি কমে বিপদসীমার নীচে প্রবাহিত হচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, ইতিমধ্যে নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলের প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।গত বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টায় পানি বিপদসীমার কাছাকাছি এবং বিকেল ৩ টায় বিপদসীমা দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। তবে রাত ৯টায় ডালিয়া পয়েন্ট পানি বিপদসীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। শুক্রবার সকাল ৬টায় তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমা ১৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে সকাল নয়টায় তা কমে বিপদসীমার ৫ সে. মি উপরে রেকর্ড করা হয়েছে। জেলার ধরলা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে শিমুল বারি পয়েন্টে বিপদসীমার ১৫ সে. মি. উপরে রেকর্ড করা হয়েছে। রত্নাই নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে গত কয়েকদিনে ৮/১০ টি বসতভিটা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। হুমকির মুখে পড়েছে আরও ফসলি জমি ও বাড়িঘর। এছাড়াও জেলা বিভিন্ন নদী ও খাল, ডোবার পানি বৃদ্ধি পেয়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে কয়েক হাজার মানুষ। প্লাবিত হয়েছে নদী তীরবর্তী লোকজনের বাড়িঘর। চলাচল, রান্নাসহ দৈনন্দিন কাজকর্ম বিঘ্ন হয়ে পড়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিস্তা ও ধরলার পানি বৃদ্ধি ও জেলার পাটগ্রামের দহগ্রাম,তাঁতীপাড়া, হাতীবান্ধার গড্ডিমারী,দোয়ানী,ছয়আনী, সানিয়াজানের নিজ শেখ সুন্দর,বাঘের চর, ফকিরপাড়া ইউপির রানীগঞ্জের ৭,৮ নং ওয়ার্ড,সিংঙ্গীমারি ইউনিয়নের ধুবনী, সিন্দুর্না ইউপির পাটিকাপাড়া,হলদিবাড়ী, ডাউয়াবাড়ী, কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী, শোলমারী, নোহালী, চর বৈরাতি,রুদ্রেশ্বর,আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা,পলাশী ও সদর উপজেলার ফলিমারীর চর খুনিয়াগাছ,রাজপুর,গোকুণ্ডা ইউনিয়নের তিস্তা নদীর তীরবর্তী নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করে প্লাবিত করেছে।

হাতীবান্ধা উপজেলার চর সিন্দুর্না গ্রামের আনোয়ার হোসেন বলেন, তিস্তার নদীর পানি গতকাল বিকেল থেকে হুহু করে বেড়ে রাতে আরও বাড়ছে। নদীর তীরবর্তী হওয়ায় কয়েকদিন থেকে রাতে ঘুম আসছে না চোখে। গত রাতে তিস্তা পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ঘরবাড়িতে পানি প্রবেশ করেছে।

 হাতীবান্ধা উপজেলার গড্ডিমারী ইউনিয়ন এর ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জাকির হোসেন জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে ক্রমে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়ে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে। এতে শতাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের জুয়েল মিয়া বলেন, গত রাত থেকেই পানি বাড়ছে। এখন অনেক পরিবার পানিবন্দী। চলাচল সহ সবকিছু আটকে আছে।

 এ বিষয়ে লালমনিরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, উজানের ঢল ও টানা বৃষ্টিতে পানি বেড়েছে। পানিবন্দী মানুষজনের সকল ধরনের সহযোগিতা দিতে প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও বন্যা মোকাবিলায় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর জানান, বন্যাসহ যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সব রকম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। বন্যাকবলিত পরিবারগুলোর তালিকা তৈরি করতে সকল উপজেলা নিবাহী অফিসারদের নিদেশ দেওয়া হয়েছে।তালিকা হয়ে গেলে দ্রুত খাদ্য সামগ্রী প্রদান করা হবে।পযাপ্ত খাদ্য সামগ্রী রয়েছে বলে তিনি জানান।

সংবাদ টি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved
Design BY POPULAR HOST BD