Main Menu

মাদারীপুর উপজেলা নির্বাচনী সহিংসতার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

মাদারীপুর সদর উপজেলা নির্বাচন নিয়ে সহিংসতার বিভিন্ন ঘটনা একটি পক্ষ নিজেদের এলাকার আদিপত্য বিস্তার করার জন্য মিথ্যা অপবাদ দেয়ার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে সংবাদ সম্মেলন করেছে তৈয়ব আলী হাওলাদার।

সংবাদ সম্মেলনে তৈয়বআলী হাওলাদারের পক্ষে পড়ে শুনান এলাকার স্বপন হোসেন, লিখিত বক্তব্যে জানান, ইউনুচ চৌকিদার ও ফরহাদ ডাকাতের লোকজন আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কোন ঘটনা ঘটাইলে তাহা নৌকা ও আনারস মার্কার ঘটনা বলিয়া অপপ্রচার চালিয়ে বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করে। উক্ত সন্ত্রাসী কার্যকলাপে গ্রামের নিরীহ লোকজন বাধা প্রদান করিলে তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী শহিদ মাতুব্বর, জামাল মাতুব্বর, রাসেল মাতুব্বর, সিপন মাতুব্বর, এমারাত খন্দকার, ইমন হাওলাদার, রবিউল হাওলাদার সহ ধারালো অস্ত্রসত্র দিয়া কোপাইয়া পিটাইয়া মারাত্তক হারকাটা রক্তাত্ত জখম করে। তাহারা জব্বার শরীফের ইচ্ছার বিরুদ্বে জোর পূর্বক অপহরণ করিয়া কোপাইয়া পিটাইয়া মারাত্তক হারকাটা রক্তাত্ত জখম করে।

উক্ত অপহরণ কাজে বাধা দেয়ায় সাহেবালী হাওলাদারকেও কোপাইয়া পিটাইয়া মারাত্তক হাড়কাটা রক্তাত্ত জখম করে। সন্ত্রাসীরা মনা খন্দকার, শহিদ মাতুব্বর, জামাল মাতুব্বর, চুন্নু বেপারী, রাসেল মাতুব্বর, তৈয়বালী হাওলাদারের বাড়ী ঘর ভাংচুর করিয়া মালামাল লুট করিয়া সর্বশান্ত করিয়াছে। এবং মারাক্তক বিষ্ফোরন ঘটাইয়া জনমনে আতঙ্গ সৃষ্টি করিয়াছে।

এসব ঘটনা সবই নির্বাচনের আগে হলেও (বুধবার-১৯ জুন) সকালে তাহাদের বিভিন্ন লুটকৃত মালামাল ভাগাভগি নিয়ে নিজেদের মধ্য বাকবির্তন্ডা হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে নিজেদের মধ্যে দুই পক্ষ হয়ে বাড়ী ঘর ভাংচুর ও লুটপাট চালায়।
এছাড়া আমার আনারস প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচরনা করা ও সমর্থন দেয়ায় আমাদেরকে সেই দায়ভার চাপিয়ে এলাকায় আতংক ও সম্মানহানী করার অপচেস্টা চালাচ্ছে। আমরা উক্ত বিষয় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

এসময় সহিদ মাতু্ব্বর উপস্থিত ছিলেন। সেও সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

উল্লেখ্য, এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করেছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ.ফ.ম. বাহাউদ্দিন নাছিম সমর্থিত জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজল কৃষ্ণ দে। অপরদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন সাবেক নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খানের ছোট ভাই জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট ওবায়দুর রহমান কালু খান।

নির্বাচনে  আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ওবাইদুর রহমান কালু খান ৮ হাজার ১৪৩ ভোটের ব্যবধানে ৬১ হাজার ৭০৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।






News Room - Click for call