Main Menu

উপজেলা নির্বাচন

নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষে মাদারীপুর সচেতন নাগরিক সমাজের স্মারকলিপি

সন্ত্রাস নৈরাজ্য সৃষ্টি সাধারন ভোটারদের হুমকি প্রদান, সভা-সমাবেশ অকথ্য-অশ্লীল ভাষায় বক্তব্য প্রদান ও মিথ্যাচারের প্রতিবাদে এবং গ্রহনযোগ্য অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষে মাদারীপুর জেলা নির্বাচন কমিশনার ও জেলা প্রশাসকের কাছে একটি স্মারকলিপি দিয়েছে মাদারীপুর সচেতন নাগরিক সমাজ।

স্মারক লিপিতে অভিযোগ করে সচেতন নাগরিক সমাজ পক্ষে জানানো হয়, মাদারীপুর সদর উপজেলার নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজল কৃঞ্চ দে ও তার সমর্থক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ হোসেন ইয়াদ, পাভেলুর রহমান শফিক খান, রুবেল খানসহ নেতাকর্মীরা বিভিন্ন নির্বাচনী জনসভায় আমাদের প্রাণপ্রিয় নেতা সাতবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য সাবেক নৌ-পরিবহন মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান খানকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্গন করছে। তারা সাধারন ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শন ও বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাস সৃষ্টি করছে।

এসময় স্মারকলিপিতে কয়েকটি এলাকার ঘটনা উল্লেখ করা হয়। এছাড়া আনারস প্রতিকের কাজ করায় নিরীহ নেতাকর্মীদের একটি তালিকা পুলিশ সুপারের কাছে প্রেরণ করে উক্ত নেতা কর্মীদের গ্রেফতারের জন্য চাপ সৃষ্টি করছে। তাই আমাদের ধারনা সদর উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মাদারীপুর উত্তেজনা বিরাজ করছে এবং যেকোন সময় আইন শৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতি সৃষ্টি হতে পারে।
মাদারীপুর শান্তিপ্রিয় মানুষ সদর উপজেলার একটি অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন আশা করে জেলা প্রশাসক ও জেলা নির্বাচন কমিশনার মোঃ ওয়াহিদুল ইসলামের কাছে স্মারক লিপি প্রদান করে।

এসময় জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান হাওলাদার ছাড়াও আরও উপস্থিত ছিলেন, সাবেক পৌর মেয়র বীরমুক্তি যোদ্ধা খলিলুর রহমান খান, মাদারীপুর বনিক সমিতির সভাপতি সাব্বির ভুইঞা (ছোট), মাদারীপুর চেম্বার অফ কমার্স এর সিনিয়র সহ-সভাপতি বাবুল দাস, জেলা ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদক তানভীর হোসেন আবীর প্রমুখ।

জেলা প্রশাসক ও নির্বাচন কমিশনার মো. ওয়াহিদুল ইসলাম স্মারকলিপিটি গ্রহন করে মাদারীপুর সচেতন নাগরিক সমাজ আসাস্ত করেন এবং শান্তিপূর্ন ভোটগ্রহন ও ভোটারা শান্তিপূর্নভাবে নিরভয়ে ভোট দিতে পারবে বলে জানায়।

মাদারীপুর সচেতন নাগরিক সমাজের পক্ষে সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান হাওলাদার জানান, আমরা স্মারকলিপিতে বিভিন্ন বিষয় জানিয়েছি, সে আমাদের আগামী ১৮জুন শান্তিপূর্ন ভাবে ভোট দিতে পারবো সেটা আসাস্ত করেছে। আমরা তার কথা আসাস্ত হয়েছি। আমরা শান্তি পুর্ণ ভাবে ভোট দিতে চাই, কোন সংঘাত চাই না।






News Room - Click for call