Main Menu

ট্রেনে ঈদের টিকিট প্রতিদিন ২৭ হাজার

আসন্ন ঈদ আযাহা উপলক্ষে ২২ মে থেকে শুরু হয়েছে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি। কমলাপুরসহ রাজধানীর পাঁচটি জায়গায় এ টিকিট পাওয়া যাবে। দিনে প্রায় ২৭ হাজার টিকিট দেওয়া হবে। তার অর্ধেক মিলবে মোবাইল অ্যাপসে। বাকি অর্ধেক কাউন্টার থেকে সংগ্রহ করতে হবে।

বুধবার (১৫ মে) সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানান রেলমন্ত্রী।

৫ জুন পবিত্র ঈদুল ফিতরের সম্ভাব্য দিন ধরে টিকিট বিক্রি শরু হয়েছে। ৩১ মের টিকিট দেওয়া হবে ২২ মে। তাছাড়া ১ জুনের ২৩ মে, ২ জুনের ২৪ মে, ৩ জুনের ২৫ মে ও ৪ জুনের টিকিট পাওয়া যাবে ২৬ মে।

কমলাপুরে পাওয়া যাবে পশ্চিমাঞ্চলগামী ট্রেনের টিকিট, ভায়া যমুনা সেতু। চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী আন্তনগরের টিকিট মিলবে বিমানবন্দর কাউন্টার থেকে। ময়মনসিংহ, জামালপুরগামী আন্তনগরের টিকিট মিলবে তেজগাঁও রেলস্টেশনে। নেত্রকোনাগামী মোহনগঞ্জ ও হাওর এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিট মিলবে বনানীতে। সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী আন্তনগর ট্রেনের টিকিট মিলবে ফুলবাড়িয়া পুরোনো রেলভবনে।

জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদর্শন ছাড়া কেউ টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন না। একজন সর্বোচ্চ চারটি টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। প্রত্যেক বিক্রয়কেন্দ্রে থাকবে নারীদের জন্য আলাদা কাউন্টার।

ঈদ কেন্দ্র করে চলাচল করবে আট জোড়া বিশেষ ট্রেন। ঈদের সময় ঢাকা-কলকাতা মৈত্রী এক্সপ্রেস বন্ধ থাকবে। এ ট্রেন দিয়ে চালানো হবে খুলনা ঈদ স্পেশাল একটি ট্রেন।

রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন ঈদ উপলক্ষে রেলওয়ের কর্মসূচি সম্পর্কে এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, মোবাইল অ্যাপসে ৫০ শতাংশ টিকিট বিক্রির কথা, অ্যাপসে বিক্রি না হলে কাউন্টারে পাওয়া যাবে। টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধ ও নাশকতা রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।






News Room - Click for call