Main Menu

নড়াইলের এ আই টেকনিশিয়ান কিশোর কুমার সিকদারের বিরুদ্ধে জালিয়াতির মাধ্যমে চাকুরী নেয়ার অভিযোগ

এস কে সুজয়, নড়াইল প্রতিনিধি : নড়াইলের মুলিয়া ইউনিয়নের এআই টেকনিশিয়ান (পশু চিকিৎসক) কিশোর কুমার সিকদারের বিরুদ্ধে জালিয়াতির মাধ্যমে চাকুরী নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, কিশোর কুমার সিকদারের বাড়ি নড়াইল সদর উপজেলার নিরালী গ্রামে। তিনি স্থায়ীভাবে সেখানে বসবাস করেন। কিন্তু সদরের মুলিয়া ইউনিয়নের আখুদা গ্রামের বাসিন্দা হিসেবে আইডি কার্ড করে চাকুরী নিয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে, মুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ অধিকারী ৫ লাখ টাকা নিয়ে তাকে একাজে সহযোগিতা করেন। আদৌ তিনি কোনদিন আখুদা গ্রামে বসবাস করেননি। এই মহা জালিয়াত হাতুড়ে পশু চিকিৎসক কিশোর কুমার সিকদার গ্রামের সাধারণ মানুষদের ঠকিয়ে হাজার হাজার টাকা আয় করে চলেছেন। তার প্রতারনার শিকার হয়ে অনেক পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে। তাছাড়া ভুল চিকিৎসা দিয়ে অনেকের গরু-ছাগল মেরে ফেলার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এমন ঘটনাও আছে, ৩০ হাজার টাকা বাজার মূল্যের গরুর চিকিৎসা দিতে তিনি পর্যায়ক্রমে ৪০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। গরুর চিকিৎসা দিতে গিয়ে বাহিরগ্রামের এক যুবতী কন্যার হাত ধরে টান দিয়ে ঝাটা পেটার শিকার হয় দুশ্চরিত্রের এই পশু চিকিৎসক। তার ব্যবহারও পশুর মতো। কেউ কোন পশু চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে নানা অজুহাতে অর্থ হাতিয়ে নেন। নিজেকে উচ্চশিক্ষিত ডাক্তার দাবি করে ৫’শ টাকা ফিস নেন। এরপর নানা তালবাহানা করে নিম্নমানের কোম্পানীর ঔষধ দিয়ে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেন। কোন বাড়ি সুন্দরী যুবতী বা গৃহবধূ দেখলে নানা অজুহাতে বার বার সেই বাড়িতে যান। তার এহেন আচারনের কারনে একাধিক বাড়িতে পারিবারিক অশান্তি দেখা দিয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে একাধিক অভিযোগ দেয়া হয়েছে। কিন্তু তার জালিয়াতির সহায়তাকারী হওয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান কোন ব্যবস্থা নেননি






News Room - Click for call