Main Menu

পদ্মা সেতুর একাদশ স্প্যান ‘৬-সি’ জাজিরা প্রান্তে, বসবে মঙ্গলবার

আমাদের ডেস্ক : প্রতিটি পিলারে একে একে বসছে স্প্যান আর দৃশ্যমান হচ্ছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। এরই ধারাবাহিকতায় স্বপ্নের পদ্মা সেতুর একাদশ স্প্যান ‘৬-সি’ এখন জাজিরা প্রান্তে ৩৩ ও ৩৪ নম্বর পিলারের কাছে অবস্থান করছে।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) আবহাওয়াসহ সবকিছু অনুকূলে থাকলে সকাল থেকে স্প্যানটি ৩৩ ও ৩৪ পিলারে বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে পদ্মা সেতুর প্রকৌশলীদের। এই স্প্যানটি বসলে পুরো পদ্মাসেতু দৃশ্যমান হবে ১ হাজার ৬৫০ মিটার।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের উপসহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবীর বলেন, মাওয়া কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে সকাল ৮টায় তিন হাজার ৬০০ টন ধারণক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ ভাসমান ক্রেনে রওয়ানা দেয় ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের স্প্যান ‘৬-সি’। সকাল সোয়া ১০টায় নির্ধারিত পিলারের কাছে পৌঁছায় স্প্যান বহনকারী ক্রেনটি।

জানা যায়, পদ্মা সেতুর সর্বশেষ তথ্যের ব্যাপারে সেতুর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তরা জানান, পদ্মা মূল সেতুর ২৯৪টি পাইলে থাকবে মোট ৪২টি খুঁটি। যার মধ্যে নদীর মধ্যে ২৬২টি পাইল। মূল সেতুর ২৯৪টি পাইলের মধ্যে ইতোমধ্যে ২৪৭টি পাইলের কাজ শেষ হয়েছে। এসব খুঁটির ওপরে ৪১টি স্প্যান বসানো হবে। ইতোমধ্যেই ১০টি স্প্যান বসে গেছে। ৪২টি খুঁটির মধ্যে ২২টি খুঁটির নির্মাণ পুরোপুরি হয়ে গেছে। আগামী জুন মাসের মধ্যে আরও ১০টি খুঁটির নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। তাই ক্রমশ সেতু দৃশ্যমান হতে চলেছে।

পদ্মাসেতুর নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদী শাসনের কাজ করছে সে দেশেরই আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে সেতুর কাঠামো।

 






News Room - Click for call