Main Menu

গফরগাঁওয়ে যুবলীগের দুপক্ষে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৫

বালু মহালের ইজারা আদায়কে কেন্দ্র করে ময়মনসিংহের গফরগাঁও পৌর শহরে সংঘর্ষে জড়িয়েছে যুবলীগের দুটি পক্ষ। এতে পৌরসভা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক তাজমুন আহম্মেদসহ পাঁচজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। গুলিবিদ্ধ ছাড়াও আহত হয়েছেন আরও অন্তত ছয়জন। রবিবার সন্ধ্যায় এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে পৌর শহরের চাঁদনী মোড়ে ব্রহ্মপুত্র নদের বালু মহালের ইজারা আদায়কে কেন্দ্র করে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আবু কাওসার ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদি হাসান সানিলের লোকজনের সঙ্গে পৌরসভা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক তাজমুন আহম্মেদ গ্রুপের তর্কাতর্কি হয়। এরপর তারা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন।

এক ঘণ্টা পর সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে পৌর শহরের জামতলা মোড়ে পৌরসভা যুবলীগের অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে তাজমুন গ্রুপের তাজমুন (৩২), হৃদয় (২৫), বিপুল (২৭), মোস্তাকিম (২০) ও তারা (২৫) গুলিবিদ্ধ হন। তাদের রামদা দিয়ে কোপানেও হয়। এছাড়া রামদার কোপে আহত হন অনীক (২০) ও সোহেল। আহত হন আরও কয়েকজন।

প্রায় আধা ঘণ্টার মতো চলা সংঘর্ষের সময় শতাধিক রাউন্ড গুলির শব্দ পাওয়া যায়। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে পৌর শহরের কলেজ রোডে আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে দুজনকে ঢাকা মেডিকেল ও কয়েকজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

গফরগাঁও আধুনিক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. মাহমুদুল হাছান শিমুল জানান, গুলিবিদ্ধদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গুরুতর আহত তাজমুন আহমেদ ও হৃদয়কে আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সংঘর্ষে পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বাবুল হাছানের মোটরসাইকেল আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয় এবং ৭/৮টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়। ভাঙচুর করা হয় পৌরসভা যুবলীগের অস্থায়ী কার্যালয়ও।

গফরগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ খান জানান, সংঘর্ষের সময় ফাঁকা গুলি ছুড়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ভাঙচুর করা মোটরসাইকেল থানায় আনা হয়েছে। এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত থানায় কেউ অভিযোগ করেনি।

ঢাকাটাইমস






News Room - Click for call