Main Menu

পুলিশ কনেষ্টেবলের বিরুদ্ধে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ এনে মামলা

মোল্লারহাটে জায়গা-জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ এনে পুলিশের এক কনেষ্টেবল সহ ৮ জন কে আসামি করে মামলা হয়েছে । মামলার ১ নং আসামি পুলিশ সদস্য নুর ইসলাম ভুইয়া(হিটু) বাগেরহাট জেলার মোল্লারহাট উপজেলার শাসন গ্রামের রুস্তুম ভুইয়ার ছেলে । সে বর্তমানে গোপালগঞ্জ জেলার মুকসেদপুর থানার সিন্দিয়াঘাট ফাড়িতে কর্মরত আছেন তাহার গোপালগঞ্জ জেলা পুলিশ কনেষ্টবল পরিচিতি নং ২৯১।

গত ১৩ জুন মোল্লারহাট উপজেলার শাসন এলাকার চুনখোলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা কেরামত ভুইয়া বাদি হয়ে মোল্লারহাট থানায় এ মামলা দ্বায়ের করেন ।

মামলার অন্যান্য আসামিরা হলেন, ওই এলাকার রুস্তুম ভুইয়ার ছেলে ওহিদ ভুইয়া,সেপার ভুইয়া। নুরুজ্জামান ভুইয়ার ছেলে তুহিন ভুইয়া,তোফায়েল ভুইয়া,মানিক ভুইয়া, নওয়াব ভুইয়ার ছেলে মনির ভুইয়া ও জর্লিল ভুইয়ার ছেলে শিপুল ভুইয়া।

গতকাল বিকালে কান্নাজড়িত কন্ঠে মামলার বাদি কেরামত ভূইয়া অভিযোগ করিয়া বলেন, আমার ছোট ভাইবৌ রেহানা বেগম তার অবস্থা আসংঙ্খা জনক। সে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। জায়গাজমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে একই গ্রামের নুর ইসলাম ভূইয়া দলীয় ৮ জন লোক নিয়ে গত ১২ জুন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আমার বাড়িতে এসে চিৎকার করে গালাগাল করতে শুরু করে। আমি ঘর থেকে বের হয়ে তাদের সংযত হয়ে কথা বলতে বললে উপস্থিত নুর ইসলাম ভূইয়ার হাতে থাকা দাঁ দিয়ে আমাকে কোপ দিয়ে আমার হাতের হাড় কেটে জখম করে। এ সময় আমার চিৎকারে ছোট ভাইবৌ রেহানা বেগম ও ভাতিজা নাবালক জব্বার ভুইয়া ঠেকাইতে আসলে তাকেও ওরা মারপিট করে।

পরে এলাকাবাসী আমাদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় আমি ১৩ জুন মোল্লাহাট থানায় অভিযোগ করি এবং ১৪ জুন ৮ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করা হয় । যাহার মামলা নং ৬/৭৯। মামলায় আসামী ৮ জনের মধ্যে ৭ জন আদালত থেকে জামিনে এলেও প্রধান আসামী নুরইসলাম ভুইয়া জামিন নেননি বলেও তিনি জানান এবং তিনি গোপালগঞ্জ জেলা মুকসেদপুর থানাধীন সিন্দিয়াঘাট ফাড়িতে কর্মরত আছেন। পরে তিনি ঘটনাটি পত্রিকায় সংবাদ হিসাবে প্রকাশ করার জন্য অনুরোধ করেন।

এ ব্যাপারে মোল্লারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ কাজী গোলাম কবীরের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, মামলার ১নং আসমি কনেষ্টেবল নুর ইসলাম ভুইয়া গোপালগঞ্জের মুকসেদপুর থানার সিন্দিয়াঘাট ফাড়িতে কর্মরত আছেন। তাই আমরা অফিসিয়াল ভাবে গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার কে জানিয়েছি তিনি যাচাই বাচাই পূর্বক ব্যাবস্থা নিবেন ।






News Room - Click for call