Main Menu

পাইকগাছায় এক সন্তানের জননীর গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা

খুলনার পাইকগাছায় গলায় রশি দিয়ে এক সন্তানের জননী আত্মহত্যার চেষ্টার এক সপ্তাহ পর গৃহবধু সুষমা মন্ডল (২৫) এর মৃত্যুর কাছে হার মেনেছে।

মঙ্গলবার রাতে খুলনার একটি বেসরকারি ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার অকাল মৃত্যু হয় বলে পারিবারিক সূত্র জানিয়েছেন। সুষমা লস্কর ইউপির পূর্ব খড়িয়া গ্রামের সন্নাসী সরদারের ছেলে সুব্রত সরদারের স্ত্রী।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছেন, পরকিয়া ও পারিবারিক দ্বন্দ্বের কারণে সুষমা এক সপ্তাহ পূর্বে উপজেলার সোলাদানা ইউপির খালিয়ারচকে বাপের বাড়ীতে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। মুর্মূর্ষ অবস্থায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পর একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। এখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার ভোর রাতে গৃহবধুর মৃত্যু হয়।

জানাগেছে, ১২ বছর পূর্বে উপজেলার খালিয়ারচক গ্রামের জামিনী মন্ডলের মেয়ে সুষমার সাথে পূর্ব খড়িয়া গ্রামের সুব্রত মন্ডলের সাথে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে আপন নামে পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ুয়া এক সন্তান রয়েছে।

বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে, বিয়ের পর থেকে স্বামী-স্ত্রীর দাম্পত্য কলহ ও পরকিয়ার অভিযোগ উঠে। যে কারণে কয়েক দফা সালিশী বৈঠকের পর সর্বশেষ এক সপ্তাহ পূর্বে সুষমার ভাই পিযুষ মন্ডল তার বোনকে বাড়িতে নিয়ে আসে। এখানে সুষমা গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। সুষমার পিতা-মাতার অভিযোগ তার মেয়েকে প্রায় সময়ই শারীরিক নির্যাতন করা হতো। যার ফলে মেয়ে আত্মহত্যার পথ বেচে নেয়।

ময়না তদন্ত শেষে বুধবার সন্ধ্যায় স্বামীর বাড়ীতে সুষমার সৎকার হয়।






News Room - Click for call