Main Menu

মাদারীপুর নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা: অভিযোগ বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকের বিরুদ্ধে

মাদারীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় এক যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী ও সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের ছোট ভাইয়ের সমর্থকদের বিরুদ্ধে। বুধবার (১৯ জুন) বেলা ১টার দিকে মাদারীপুর পৌর শহরের সবুজবাগ এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, সবুজবার এলাকার নদীর পাড় দিয়ে যাচ্ছিলেন নৌকা প্রতীকের সমর্থক এরশাদ মুন্সী (২২), এসময় ওত পেতে থাকা বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থক জসিম গৌড়াসহ তার দলবল নিয়ে এরশাদকে কুপিয়ে মারাত্মক জখন করে।

এসময় এরশাদের আত্ম-চিৎকারে এগিয়ে এসে মুর্মূষ অবস্থায় উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এরশাদের মৃত্যু খবর ছড়িয়ে পড়লে আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা হাসপাতালে ছুটে আসে। এরশাদ সবুজবাগ এলাকার বেলায়েত মুন্সীর ছেলে।

সে গতকাল (১৯ জুন) অনুষ্ঠিত মাদারীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজল কৃষ্ণ দে’র সমর্থক ছিলেন। নির্বাচনে জসিম গৌড়া বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের ছোট ভাই ওবাইদুর রহমান খানের সমর্থক। এর আগেও এরশাদ ও জসিম গৌড়ার মধ্যে স্থানীয় প্রভাব নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল বলেও জানা যায়।

ঘটনার পর মাদারীপুর পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও র‌্যাব ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ওই এলাকাসহ আশ-পাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

নিহতের মামা কাওছার হোসেন অভিযোগ করেন, ‘এরশাদ নৌকার সমর্থক হওয়ায় জসিম গৌড়া তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে এরশাককে নির্মম ভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে।’






News Room - Click for call