Main Menu

মাদারীপুর সদর উপজেলা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ

আজ (১৮ জুন) মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে ব্যপাক নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে চলছে মাদারীপুর সদর উপজেলা পরিষদের ভোট গ্রহন।

মাদারীপুর জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, চেয়ারম্যান পদে ২জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩জন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। এই নির্বাচনে ১টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়নের ১শ’ ১৫টি কেন্দ্রের ৬শ’ ৪৮টি কক্ষে ২ লাখ ৬৬ হাজার ৫শ’ ১৫জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। যার মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৩৫ হাজার ৩শ’ ৩৫ জন ও নারীর ভোটারের সংখ্যা ১ লাখ ৩১ হাজার ১শ’ ৬০ জন।

মোট ১১৫টি ভোট কেন্দ্রর মধ্যে ১১০টি কেন্দ্রই ঝুকিপূর্ন হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। তাই প্রতিটি কেন্দ্রে একজন করে এসআই ও ৫ জন পুলিশ, ১০ জন আনসার মোতায়ন রয়েছে। এছাড়া ৫৫জন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত রয়েছে। ৫ প্লাটুন বিজিবিসহ ১১০০পুলিশ ও র্যাব মাঠে কাজ করছে। পাশাপাশি ৩টি কেন্দ্রে জন্য একটি মোবাইল টিম ম থাকবে ও ১০টি কেন্দ্রের জন্য একটি স্ট্রাইকিং ফোর্স থাকবে। যাতে করে নির্বাচনে কেউ কোন রকমের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে।’

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার সুব্রত কুমার হালাদার বলেন, ভোট কেন্দ্রে যদি কেউ বিশৃঙ্খলা বা ব্যালট বাক্স ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেন তাকে কঠোর হস্তে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। প্রয়োজনে সরাসরি গুলি করা হবে।

নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজল কৃষ্ণ দে‘র বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সাবেক নৌ মন্ত্রী শাজাহান খানের ভাই এ্যাড. ওবাইদুর রহমান কালু খান।

মাদারীপুরে রয়েছে আওয়ামলীলীগের দুই গ্রুপের গ্রুপিং দ্বন্দ্ব। এক গ্রুপের নেতৃত্ব দেয় সাবেক নৌ মন্ত্রী শাজাহান খান অপর গ্রুপের নেতৃত্ব দেয় কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম। এবার নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজল কৃষ্ণ দে।

অপর দিকে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন সাবেক নৌ মন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ শাজাহান খানের ভাই ওবায়দুর রহমান কালু খান। এই দুই হেভিওয়েট নেতাদের কারনে এই নির্বাচন খুব মর্যাদাপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করছে স্থানীয়রা। দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে একাধিকবার ঘটছে সংঘর্ষের ঘটনা।

এদিকে নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ায় জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ২৭ নেতাকে বহিস্কার করা হয়েছে। সদর থানার ওসিসহ ৩ পুলিশ কর্মকর্তাকে অন্যত্র বদলির নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। দীর্ঘ হেভিওয়েট ২ নেতা শাজাহান খান ও বাহাউদ্দিন নাছিম একে অপরকে দুষছেন।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে দাবী করা হচ্ছে শতভাগ নিরপেক্ষ সুষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।






News Room - Click for call