Main Menu

শফিকুর রহমানের “ছাতিম তলার নদী”

“ছাতিম তলার নদী”
শফিকুর রহমান চৌধুরী (টুটুল)

আমার একটা নদী আছে,
যার শরীর ঘেসে বেড়ে উঠেছে ঝোপঝাড়, লতাগুল্ম।
অযতেœ, অবহেলায় বড় হয়ে উঠছে
হরেক রকমের নাম না জানা বৃক্ষরাজি।
তবে ছাতিমের গাছটায় দেখলাম মদির করা গন্ধ বিলানো ফুল ফুটেছে,
পাশের কদম গাছে একজোড়া ঘুঘু বাসা বেঁধেছে সেই কবে থেকে।
সারাদিন তাদের খুনসুটি চলছে,
ভাবছি তোমাকে কোনটা দেবো।
নদীটা আমার সুহৃদ, দিনভর কথা কয়ে যায়-
কলকল, ছলছল, ছলাৎছল।
নদী আমার দুঃখদিনের সাথী তাকে হারিয়ে
আমি কি’করে বাঁচি?
আবার ছাতিমের মদির করা গন্ধে
তোমার শরীরের গন্ধ পাই, স্পর্শ নেই,
ওটা কি করে তোমাকে দেই, বলো?
তবে কি জানো?
ঘুঘুর কুজন আর ওদের সুখের সংসার
আমাকেও স্বাপ্নিক করে তোলে।
তোমাকে নিয়ে ঘর বাঁধার ইচ্ছে জাগায়,
ঘুঘুর বাসাটা কি তুমি করে নেবে বলো ?
তাইতো কিছুই দিতে পারছিনা তোমায়।
তবে তুমি যদি চাও বসতে পারো দু’ দন্ড
মাদুর পেতে ছাতিমের তলায়।
দেখতে পারো কিছুক্ষন ঢেউয়ের
সাথে পাখির মিতালী।
এরপর যদি নদীর সাথে সখ্য হয়ে যায়
তাহলে নদীটা তোমাকে দিয়ে দেবো।
শুধু ছাতিমের পাগল করা গন্ধটুকু আমার,
নদীর কলতান টুকুও রেখে দিও আমার জন্য,
ঘুঘুর সুখের নীড়ে আমিও একজন দর্শক
ক’দিন পরে নীড় ভেঙে যাবে, নতুন অতিথি আসবে
তোমারও হয়তো বিশ্রাম নেওয়া শেষ
যা ছিল আমার, নিয়ে যেও
যা চেয়েছিলাম, অলীক ভেবে ফিরিয়ে নেব।
নদীর সাথে, ছাতিমের সাথে, ছোট্ট ঘুঘুর সাথে
নিরন্তর আমার বসবাস।






News Room - Click for call