Main Menu

আজ মাদারীপুরের নারী সাংবাদিক আয়েশা সিদ্দিকা আকাশীর শুভ জন্মদিন

সাংবাদিক ও সমাজসেবক আয়েশা সিদ্দিকা আকাশীর শুভ জন্মদিন।আয়েশা সিদ্দিকা আকাশী সাংবাদিকদের অন্যতম সংগঠক মৈত্রী মিডিয়া সেন্টার কমিটির সফল সিনিয়র সহ-সভাপতি, দৈনিক কালের কন্ঠ মাদারীপুর জেলা প্রতিনিধি, দৈনিক সুবর্ণগ্রাম বার্তা সম্পাদক।

কবিতা লিখতে এসেই “দৈনিক সুবর্ণগ্রাম” এর সাথে পরিচয় আয়শা সিদ্দিকা আকাশীর। একজন কবি থেকে পরিশ্রম করে আজকের সাংবাদিক তিনি। সাংবাদিকতাই যেনো তার নেশা ও পেশায় পরিণত হয়েছে। সেই ২০০১ সাল থেকে “দৈনিক সুবর্ণগ্রাম” এর সাথে তিনি জড়িত হন তার কবিতার মাধ্যমে, জানালেন মন্টু খান।

কবিতা লেখার পাশাপাশি ২০০২ সালের দিকে “দৈনিক সুবর্ণগ্রাম” এর নারী পাতায় ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক হিসেবে ফিচার লেখা শুরু করেন। সেখান থেকেই শুরু তার পথচলা। তারপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। একের পর এক ফিচার করে মাদারীপুরের নারী সমাজকে জাগিয়ে তোলার যে কাজ তিনি হাতে নিয়েছেন, তাতে তিনি অনেকটা সফল।

এরপর কথা হয় আত্মপ্রত্যয়ী আয়শা সিদ্দিকা আকাশীর সাথে। তার সাথে কথা বলে জানা যায়, একজন নারী একেবারে শূণ্য থেকে কিভাবে পরিশ্রমের মাধ্যমে সাফল্য অর্জন করতে পারে।

বাবার চাকুরির সুবাদে দেশের বিভিন্ন এলাকায় থাকা হয়েছে তার। বাবার অবসরজণিত কারণে স্ব-পরিবারে জেলা সদর মাদারীপুরে আগমন। কবিতা দিয়ে শুরু আকাশীর লেখা-লেখি। আয়শা সিদ্দিকা আকাশীর নানাবাড়ি শহরতলি হাজির হাওলা গ্রামে এক মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম তার। মাদারীপুর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন আয়শা সিদ্দিকা আকাশী। পৈত্রিক নিবাস বগুড়ার সারিয়াকান্দি গ্রামে হলেও যমুনা নদীতে ঘরবাড়ি ভাঙ্গার কারণে তেমন যোগাযোগ নেই।

এসএসসি পাস করার পর ভর্তি হয় স্থানীয় চরমুগরিয়া মহাবিদ্যালয় কলেজে। লেখাপড়ার পাশাপাশি শুরু করে কবিতা চর্চা। ইতিমধ্যে পরিচয় ঘটে নানা সামাজিক সংগঠনের কর্মীদের সাথে। পরিচয় হয় মাদারীপুর থেকে প্রকাশিত দৈনিক পত্রিকা ‘সুবর্ণগ্রাম’ এর প্রকাশক ও সম্পাদক এবিএম বজলুর রহমান মন্টু খানের সাথে। তিনি সুযোগ করে দেন দৈনিকটিতে কাজ করার। আয়শা সিদ্দিকা আকাশী লুফে নেয় সেই সুযোগ। এরইমধ্যে এইচএসসি পাস করেন। কবিতার পাশাপাশি লেখা শুরু হয় প্রবন্ধ-ফিচারের। পরিচয় ঘটে মাদারীপুরের প্রবীণ সাংবাদিক শাহজাহান খানের সাথে। তার আন্তরিক সহচার্যে লেখা-লেখির স্পৃহা আরো বেড়ে যায়। সুযোগ আসে একটি জাতীয় দৈনিক ডেসটিনি পত্রিকায় মাদারীপুর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করার। সেখানে কয়েক বছর কাজ করার পর সুযোগ পান দৈনিক কালের কণ্ঠ পত্রিকায় কাজ করার। বর্তমানে তিনি কালের কণ্ঠ পত্রিকায় মাদারীপুর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছেন।

সাংবাদিকার শুরুতেই বর্তমান এটিএন নিউজ এর মাদারীপুর প্রতিনিধি ও দৈনিক বিশ্লেষণ পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক জহিরুল ইসলাম খানের কাছে সংবাদ লেখা শিখেন। জহিরুল ইসলাম খানের সহযোগিতায় আয়শা সিদ্দিকা আকাশী শিখে নেন সংবাদ লেখার কলা-কৌশল, তথ্য সংগ্রহের কৌশল আর কম্পিউটার ও ছবি তোলার কৌশল। কয়েক মাসের মধ্যে তিনি সব সুন্দর ভাবে শিখে আরো উদ্যোমে শুরু করেন তার পথচলা।

সরকারী নাজিমউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে বিএ ও ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতিতে মার্স্টাস শেষ করেন। এরপর তিনি বঙ্গবন্ধু ল’ কলেজ থেকে আইন বিষয়ের উপর ডিগ্রী নেন। পড়াশুনার পাশাপাশি চলতে থাকে তার সাংবাদিকতা। অনেক বাধা-অন্তরায়। কখনো হুমকি-ধামকি। মাঝে মধ্যে কর্তাব্যক্তিদের টেলিফোন। কিছুই তাকে দাবিয়ে রাখতে পারেনি। আয়শা সিদ্দিকা আকাশী পেশাগত দায়িত্ব পালনে অবিচল।

জেলা সদর মাদারীপুরসহ উপজেলাগুলোতে বার্তা সম্পাদক ও সাংবাদিক হিসেবে আয়শা সিদ্দিকা আকাশীর নাম ছড়িয়ে পড়ে একজন সৎ ও নিষ্ঠাবান নারী সাংবাদিক হিসেবে। ছোট বেলা থেকে বই পড়া ও সংগ্রহ করা সখ তার। তার সংগ্রহে উল্লেখযোগ্য সংখক বই রয়েছে।

সাংবাদিকতা ও সমাজসেবক হিসেবে একাধিক বার সম্মাননা এবং পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

তার সার্বিক উন্নতি ও সুস্বাস্থ্য কামনা করে আয়েশা সিদ্দিকা আকাশীর জন্মদিনে মৈত্রী মিডিয়া সেন্টার কমিটির সকল সদস্যদের পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানানো হয়।






News Room - Click for call