Main Menu

ভাঙ্গার ব্রাহ্মনপাড়া ইট ভাটার মালিক শাহাদাতকে নিয়ে মানবকণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার ব্রাহ্মনপাড়া গ্রামের ইট ভাটার মালিক মােঃ শাহাদাত মাতুব্বরকে নিয়ে গত ১৫ জুলাই ২০২০ দৈনিক মানবকণ্ঠ পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন। দৈনিক মানবকণ্ঠ পত্রিকায় হেড লাইনে সাড়ে তিন কোটি টাকার বাটপারি প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন ইট ভাটার মালিক মােঃ শাহাদাত মাতুব্বর।

উক্ত সংবাদ সম্পূর্ন মিথ্যা বানােয়াট ও ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন তিনি। মােঃ শাহাদাৎ মাতুব্বর বলেন, ১১২ নং ব্রাহ্মনপাড়া মৌজার ২৮৭ নং খতিয়ানে এস.এ, দাগ নং-৪৭৩, ৪৭৪, ৪৭৭, ৪৯৮, ৪৯৯ সহ অন্যন্যা দাগে গত ১৯৯৬ সালে জনৈক নুরুল ইসলাম একটি ইটের ভাটা তৈরী করে দীর্ঘদিন ইটের ব্যবসা করে আসছিলেন।

এরপর তিনি গত ২০/০৩/২০১৩ তারিখে নােটারী পাবলিকের মাধ্যমে জনৈক মাহাবুল আলমের নিকট বিক্রি করে ভাটার নাম পরিবর্তন করে মেসার্স দোয়েল ব্রিকস্ নাম দেওয়া হয়। এরপর গত ০২/০৮/২০১৬ তারিখে মাহাবুল আলমের নিকট থেকে মােঃ শাহাদাৎ মাতুব্বর, পিতা-দবিরউদ্দিন মাতুব্বর, সাং- ব্রাহ্মনপাড়া, সেই থেকে মােঃ শাহাদাৎ মাতুব্বরের নামে ট্রেড লাইসেন্স নং-৩৭, ইট পােড়ানাের লাইসেন্স। নং-১৫৩, পরিবেশ অধিদপ্তর ছাড়পত্র নং-২৮৩, ফায়ার সার্ভিস লাইসেন্স নং-৪০০২, আয়কর নং-১২০২০৩৫১৩৬৪৯/৬৬, ভ্যাট নং-২৮২ সহ সমস্ত প্রয়ােজনীয় কাগজপত্র ও লাইসেন্স নিয়ে ইট ভাটা পরিচালনা করে আসছে।

এরপর পদ্মা সেতু রেল সংযােগ প্রকল্পের আওতায় ১১২ নং ব্রাহ্মনপাড়া মৌজার ২৮৭ নং খতিয়ানে এস.এ, দাগ নং-৪৭৩, ৪৭৪, ৪৭৭, ৪৯৮, ৪৯৯ সহ অন্যন্যা দাগে সরকার ভূমি অধিগ্রহন করেন।

সরকারী কর্মকর্তা ও বিভিন্ন সংস্থা সরেজমিনে তদন্ত করে মােঃ শাহাদাৎ মাতুব্বরের নামে রিপোর্ট প্রদান করেন। এরপর তাদের রির্পোটের ভিত্তিতে ইট ভাটার অবকাঠামাে এর ক্ষতিপূরন বাবদ এক কোটি ঊনআঁশি লাখ টাকা প্রদান করেন।

কিছু অসাধু প্রতারক চক্র ও দুস্কৃত লােক আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য আমার নামে গত ১৫ জুলাই/২০ সম্পূর্ন মিথ্যা বানােয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করেছে। আমি উক্ত প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।






News Room - Click for call