Main Menu

বরিশাল মুলাদীতে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম এর ডিজিটাল চুরি!

বরিশালের মুলাদী-হিজলা ও মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার সমন্বয় বরিশাল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি -১ এর অধীনে ৭০হাজার গ্রাহকের সাথে ২৫% বিল বৃদ্ধি করে প্রতিনিয়ত প্রতারনা করে চলেছেন।

মিটার রিডারদের দেয়া অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার রেজায়েত আলী প্রতারনা করে বিদ্যুৎ গ্রাহকগনের বর্তমান মিটার রিডিং থেকে ২৫% বৃদ্ধি করায় গ্রাহক হয়রানি চরম আকার ধারন করেছে।

অভিযোগ উঠেছে, মুলাদী জোনাল অফিসের ডিজিএম রেজায়েত আলী এর অত্যাচারে অতিষ্ঠ কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিলিং সহকারী ও ২৮জন মিটার রিডার কাম ম্যাসেঞ্জার সহ ৭০ হাজার বিল পরিশোধকারী গ্রাহক গনের সাথে অভিনব প্রতারনার মাধ্যমে মিটার রিডারদের বাধ্য করে ডিজিএম তার পক্ষে ২৫% বিদ্যুৎ বিল বৃদ্ধি করতে চাপ প্রয়োগ করে আসছেন, এর ফলে গ্রাহকদের জনরোস থেকে নিজেদের নিরাপত্তার স্বার্থে ২৮ জন মিটার রিডার ঝুকি নিয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন। ডিজিএম রেজায়েত আলী এর চরম অনিয়ম-দূর্নীতির কারনে সঠিক সময়ে বিদ্যুৎ গ্রাহকগণ বিলের কাগজ হাতে পেতে অনেক সময় চলে যেতে পারে বলে বিদ্যুৎ সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা এর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেয়ার ভীষনকে ব্যর্থ করে দেয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত ডিজিএম রেজায়েত আলী একটি অদৃশ্য শক্তির উপর ভর করে ধরাকে শরা জ্ঞান না করে নিজের ইচ্ছা মাফিক বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ৭০ হাজার গ্রাহককে বোকা বানিয়ে নিজের স্বার্থ হাসিলের চেষ্টায় রয়েছেন। বিদ্যুৎ সমিতির এ কর্মযকর্তার বিরুদ্ধে দূর্নীতি- অনিয়ম অফিস কর্মকর্তা কর্মচারীদের সাথে অসৎ আচরন ও যৌন হেনেন্তার অভিযোগ উচ্চ পর্যায়ে বার বার দেয়া হলেও রেজায়েত আলীর খুটির জোর নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

রেজায়েত আলীর এসব অনিয়মের অভিযোগ ডিপার্টমেন্টাল পর্যায়ে ছাড়াও, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনে মুলাদী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান তারিকুল হাসান খান মিঠু এর বরাবরে দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে রেজায়েত আলী জানান প্রত্যেক গ্রাহকের মিটারে রিডিং আছে এখানে চুরি করার কোন সুযোগ নেই।






News Room - Click for call